ই-পেপার | শুক্রবার , ৯ ডিসেম্বর, ২০২২
×

স্বচক্ষে আইন ভঙ্গ করে গোপন কক্ষে ভোট দিতে দেখেছি: সিইসি

গাইবান্ধা-৫ আসনের উপ-নির্বাচন নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল। তিনি বলেন, আইন ভঙ্গ করে গোপন কক্ষে প্রবেশ করে ভোট দিতে আমরা স্বচক্ষে দেখেছি।

বুধবার (১২ অক্টোবর) রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে গাইবান্ধা-৫ আসনের ভোট পর্যবেক্ষণের মনিটরিং সেলে বসে এসব কথা বলেন তিনি।

সিইসি বলেন, মূল অ্যাকশন হিসেবে আমরা প্রথমেই কেন্দ্র বন্ধ করেছি। টেলিফোনে এসপি, ডিসি, রিটার্নিং অফিসারকে বলেছি যে, আমরা এখান থেকে সিসি ক্যামেরায় সব দেখতে পেয়েছি। তাই সঙ্গে সঙ্গে ভোট বন্ধ করে দিয়েছি।

সিইসি জানান, যদি মনে হয় নির্বাচন সঠিকভাবে হচ্ছে না তাহলে তা বন্ধ করে দিতে পারে কমিশন।

তিনি বলেন, এ বিষয়ে যখন আমরা চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবো, তখন জানাবো।

নির্বাচন কেন নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেলো- এ বিষয়ে জানতে চাইলে সাংবাদিকদের প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, আমরা দেখেছি যে নির্বাচন অনেকটাই নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে। আপনারাও দেখেছেন ভোটের গোপন কক্ষে কী হচ্ছে। সেখানে সুশৃঙ্খলভাবে কিছু হচ্ছে না।

সুশৃঙ্খলভাবে ভোটগ্রহণ কেন হচ্ছে না এ বিষয়ে তাৎক্ষণিকভাবে কিছু বলতে পারেননি সিইসি।

তিনি বলেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ঠিকমতো কাজ করছে কি না তা আমরা এই মুহূর্তে বলতে পারছি না। তবে ইভিএমে আমরা কোনো ত্রুটি দেখছি না।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, আমরা অনেককেই দেখছি যে, গেঞ্জি-শাড়ি পরে যেখানে প্রতীক আছে সেখানে গেছেন। তারা আচরণবিধি লঙ্ঘন করছেন। এটা সুশৃঙ্খল নির্বাচনের পরিপন্থী। এরাই ডাকাত, এরাই দুর্বৃত্ত। যারা আইন মানছেন না তাদের আমরা ডাকাত-দুর্বৃত্ত বলতেই পারি। কারণ আইনের প্রতি সবাইকে শ্রদ্ধাশীল হতে হবে।

এদিকে এরই মধ্যে গাইবান্ধার উপ-নির্বাচনে ৪৩টি কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত করে দিয়েছে ইসি। বুধবার সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণের শুরুতেই অনিয়ম ও জালিয়াতির অভিযোগ পেয়ে তা স্থগিত করা হয়।

অন্যদিকে অনিয়মের অভিযোগ এনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ছাড়া একযোগে বাকি চার প্রার্থী ভোট বর্জন করেছেন।

আগুন নিয়ে খেললে পরিণতি ভালো হবে না: কাদের

বিএনপি আন্দোলনের নামে সহিংসতা সৃষ্টি করলে আওয়ামী লীগ সমুচিত জবাব দেবে জানিয়ে ‘আগুন নিয়ে খেললে পরিণতি ভালো হবে না’ বলে সতর্ক করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

বুধবার (১২ অক্টোবর) ওবায়দুল কাদের রাজধানীর সেতু ভবনে ব্রিফিংকালে বিএনপি নেতাদের হুঁশিয়ার করে দিয়ে এ কথা বলেন।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিএনপি বিভাগীয় সমাবেশের ডাক দিয়েছে। যেকোনো শান্তিপূর্ণ ও গণতান্ত্রিক আন্দোলনকে স্বাগত জানাই ৷ তবে আন্দোলনের নামে সহিংসতা সৃষ্টি করলে মানুষের জান-মাল রক্ষায় জনগণকে সঙ্গে নিয়ে আওয়ামী লীগ সমুচিত জবাব দেবে। আগুন নিয়ে খেললে এর পরিণতি ভালো হবে না।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সংযমী তবে সতর্কতার জন্য প্রস্তুত রয়েছে রাজপথে। নির্বাচনে হেরে যাওয়ার ভয়ে বিএনপি এখন আন্দোলনের নামে সরকার হটানোর চক্রান্ত করছে। বিএনপি এখন গণঅভ্যুত্থানের দিবাস্বপ্ন দেখছে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, গণঅভ্যুত্থান আর আন্দোলনের ভয় বিএনপি গত ১৪ বছর ধরে দেখিয়ে আসছে ৷ তাদের এসব তর্জন-গর্জন মিডিয়া আর ফেসবুকে সীমাবদ্ধ। এ কথা দেশের জনগণ ভালোই জানে।

বাস্তবতার সঙ্গে বিএনপি নেতাদের কোনো সম্পর্ক নেই উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, বস্তুত দেশে গণঅভ্যুত্থানের মতো বস্তুগত পরিস্থিতি বিদ্যমান নেই।