চট্টগ্রাম   রবিবার, ১৬ মে ২০২১  

শিরোনাম

মওদুদ আহমদ দলবদল করতে পছন্দ করতেন: প্রধানমন্ত্রী

ঢাকা অফিস :    |    ০৫:৫১ পিএম, ২০২১-০৪-০১

মওদুদ আহমদ দলবদল করতে পছন্দ করতেন: প্রধানমন্ত্রী

রাজনীতিতে ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদের বার বার দলবদলের অভ্যাস ছিল বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সবসময় তিনি দলবদল করতে পছন্দ করতেন, একটু সরকার ঘেঁষাই ছিলেন বলেও মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী।

বৃহস্পতিবার(১ এপ্রিল) জাতীয় সংসদের অধিবেশনে সিলেট-৩ আসনের প্রয়াত সংসদ সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরীর শোক প্রস্তাবের দেওয়া বক্তব্যের সময় সদ্যপ্রয়াত বিএনপি নেতা মওদুদ আহমদকে স্মরণ করে এ মন্তব্য করেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আরেকজন ভদ্র লোকের কথা বলতেই হয়, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। যদিও কখনো তিনি ছাত্রলীগ করেননি। তিনি সবসময় একটু সরকার ঘেঁষাই ছিলেন। তিনি কবি জসীমউদ্‌দীনের মেয়ের জামাই ছিলেন বলে তার প্রতি সহানুভূতি ছিল। কিন্তু তার কিছু কিছু কাজ একটু ভিন্ন ধরনের ছিল। যার কারণে তাকে একবার গ্রেফতারও করা হয়। কারণ বাংলাদেশের কিছু গোপন তথ্য সে সময় তিনি পাচার করেছিলেন। কবি জসীমউদ্‌দীন সাহেব নিজে এসেছিলেন আমাদের বাসায়, বঙ্গবন্ধুর কাছে অনুরোধ করলেন, তখন তাকে মুক্তি দেওয়া হয়। বঙ্গবন্ধুকে যখন আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় গ্রেফতার করা হয় তখন তিনি আইনজীবী ছিলেন, আসলে এখানে লেখা আছে কিন্তু তিনি অ্যাপয়েন্টেড আইনজীবী ছিলেন না। তিনি ড. কামাল হোসেন সাহেবের সঙ্গেই ঘুরতেন, বঙ্গবন্ধুর যে পিএস ছিলেন মোহাম্মদ হানিফ তাদের সঙ্গেই ঘুরতেন। তাদের সঙ্গেই তিনি সবসময় ছিলেন, বিশেষ করে ব্যারিস্টার আমিরুল ইসলামের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা ছিল। সেই দুই জন সবসময় একসঙ্গেই চলতেন। আমার এখনো মনে আছে যখন আইয়ুব খান গোলটেবিল বৈঠক ডাকলো এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে আগরতলা মামলায় বন্দী অবস্থায় প্যারোলে নিয়ে যাওয়ার প্রস্তাব হলো। তখন আমার মা এ বিষয়ে কঠিন পদক্ষেপ নিয়েছিলেন। তিনি বলেছিলেন, মামলা প্রত্যাহার করে মুক্ত মানুষ হিসেবে যেন তিনি যান। তিনি প্যারোলে যাবেন না—এই তথ্যটি আমি মায়ের কাছ থেকে নিয়ে আমার বাবাকে পৌঁছে দিয়েছিলাম যেখানে বন্দী করে রাখা হয়েছিল সেই ক্যান্টনমেন্টের ভেতরে। সেখানে আমাদের অনেক নেতা তখন উপস্থিত ছিলেন। তাজউদ্দিন আহমেদ, তোফাজ্জেল হোসেন মানিক মিয়া, আমিরুল ইসলাম, ড. কামাল হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদসহ আরও নেতারা উপস্থিত ছিলেন। তারা বঙ্গবন্ধুকে প্যারোলে নিয়ে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত ছিলেন এবং সেটাই তারা বলার চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু আমি যখন আমার মায়ের বার্তাটা পৌঁছে দেই। অবশ্য বঙ্গবন্ধু নিজেও সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন তাকে মুক্ত মানুষ না করলে তিনি যাবেন না।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, মায়ের বার্তাটা পৌঁছে বাসায় ফিরে আসার পর দোতলার বারান্দায় একা একা দাঁড়িয়ে আছি। আমিরুল ইসলাম ও মওদুদ আমার কাছে আসেন। আমার কাছে এসে বলেছিলেন, আমিরুল ইসলাম সাহেবই বলেছিলেন আর মওদুদ তাকে সায় দিয়েছিলেন যে, ‘তুমি কেমন মেয়ে তুমি চাও না তোমার বাবা কারাগার থেকে ফিরে আসুক’। জবাবে আমি বলেছিলাম—হ্যাঁ আমার বাবা সম্মান নিয়েই ফিরে আসবেন। আপনারা এ সমস্ত বিভ্রান্তি ছড়াবেন না। সবসময় এ ধরনের কিছু কিছু কাজ তার (মওদুদ) ছিল। কিন্তু তিনি মুখে যাই বলুক আবার তার লেখাগুলির মধ্যে অনেক সময় অনেক কন্ট্রোভার্সিয়াল কথা নিজের আপন মনের মাধুরী মিশিয়ে তিনি লিখেছেন।

মওদুদ আহমদের বিভিন্ন দল পরিবর্তনের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সবসময় তিনি দলবদল করতে পছন্দ করতেন। যখন আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় যাওয়ার সুযোগ সেই ’৬৯ সালে আমাদের সঙ্গে মিশে গেলেন। ’৭৫ এর পরে বিএনপিতে যোগ দিলেন। তিনি সাজাপ্রাপ্ত একজন আসামি ছিলেন। জেনারেল এরশাদ সাহেব তাকে ক্ষমা করে দিয়ে মন্ত্রিপরিষদে আইনমন্ত্রী করলো। আবার তিনি বিএনপিতে যোগদান করলেন। রাজনীতিতে বার বার দলবদল তার অভ্যাস ছিল, এতে কোনো সন্দেহ নেই। তারপরও বলবো, তিনি একটা ট্যালেন্টেড মানুষ ছিলেন কিন্তু তার দেশপ্রেম হয়তো কাজে লাগালে দেশকে অনেক কিছু দিতে পারতেন, এটা হচ্ছে বাস্তবতা। তিনি মারা যাওয়ার পর আমি নিজে হাসনাকে (মওদুদ আহমদের স্ত্রী), তার সঙ্গে আমার পরিচয় ছিল। তার সঙ্গে কথা বলি। আমার শোক বার্তাও জানিয়েছি।

মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরীকে স্মরণ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, অনেক সংসদ সদস্যকে হারিয়েছি এটাই সবচেয়ে দুর্ভাগ্যজনক। মাহমুদ উস সামাদ ভালো সংগঠক ছিলেন। তিনি শিশুদের সচেতনতা ও বঙ্গবন্ধুর আর্দশে অনুপ্রাণিত করার কাজ করে গেছেন। যখনই শুনলাম তিনি করোনায় আক্রান্ত, ব্যবস্থা নিতে না নিতেই তিনি চলে গেলেন। অত্যন্ত রাজনৈতিক সচেতন মানুষ ছিলেন। তার মৃত্যুতে সিলেটের রাজনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হলো।

প্রধানমন্ত্রী তার রাজনৈতিক উপদেষ্টা প্রয়াত এইচ টি ইমামকে স্মরণ করে বলেন, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার যখন থেকে গঠিত হয় তখন থেকেই তিনি মন্ত্রিপরিষদ সচিবের দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি একজন আমলা হলেও রাজনৈতিকভাবে অত্যন্ত সচেতন ছিলেন।

রিটেলেড নিউজ

‘চীনা টিকা পেতে দেরি হওয়ায় কাউকে দোষারোপের সুযোগ নেই’ 

‘চীনা টিকা পেতে দেরি হওয়ায় কাউকে দোষারোপের সুযোগ নেই’ 

ঢাকা অফিস : :    পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, ‘চীনা টিকা পেতে দেরি হওয়ায় কাউকে দোষারোপ করা...বিস্তারিত


স্বর্ণের দাম বাড়লো ভরিতে ২৩৩৩ টাকা

স্বর্ণের দাম বাড়লো ভরিতে ২৩৩৩ টাকা

ঢাকা অফিস : : দুই মাসের ব্যবধানে দেশের বাজারে সব ধরনের স্বর্ণের দাম ভরিতে ২ হাজার ৩৩২ দশমিক ৮০ টাকা বেড়েছে। এখন ...বিস্তারিত


শিক্ষার্থীদের জন্ম নিবন্ধন অনলাইনে করার নির্দেশ

শিক্ষার্থীদের জন্ম নিবন্ধন অনলাইনে করার নির্দেশ

ঢাকা অফিস : : ষষ্ঠ থেকে দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের জন্ম নিবন্ধন অনলাইনে করার নির্দেশনা দিয়েছে সরকার। বাংলা...বিস্তারিত


কবরে তো সম্পদ যাবে না, আরও চাই স্বভাবটা কেন  : প্রধানমন্ত্রী

কবরে তো সম্পদ যাবে না, আরও চাই স্বভাবটা কেন : প্রধানমন্ত্রী

ঢাকা অফিস : : অনেক সম্পদ থাকার পরও আরও চাই স্বভাবের মানুষগুলোর সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ম...বিস্তারিত


দেশেই সর্বোচ্চ চিকিৎসা সুবিধা পাচ্ছেন খালেদা জিয়া: তথ্যমন্ত্রী

দেশেই সর্বোচ্চ চিকিৎসা সুবিধা পাচ্ছেন খালেদা জিয়া: তথ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক :  তথ্যমন্ত্রী চট্টগ্রামে রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী...বিস্তারিত


চবির ভর্তি পরীক্ষায় আবেদন ১ লাখ ৯৫ হাজার

চবির ভর্তি পরীক্ষায় আবেদন ১ লাখ ৯৫ হাজার

নিজস্ব প্রতিবেদক : চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক সম্মান শ্রেণীর ভর্তি পরীক্ষার আবেদন ...বিস্তারিত



সর্বপঠিত খবর

আসন্ন পটিয়া পৌর নির্বাচনে দল চাইলে মেয়র পদে প্রার্থী হবেন তৌহিদুল আলম

আসন্ন পটিয়া পৌর নির্বাচনে দল চাইলে মেয়র পদে প্রার্থী হবেন তৌহিদুল আলম

পটিয়া প্রতিনিধি : : বাংলাদেশ ফ্রেশ ফ্রুটস ইমপোর্টার্স এসোসিয়েশনের কেন্দ্রিয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক পটিয়া ...বিস্তারিত


আনোয়ারায় দলীয় কোন্দলের জেরে ছাত্রলীগ কর্মি হত্যাকাণ্ডে ফাসানো হচ্ছে নিরীহ পথচারীকে

আনোয়ারায় দলীয় কোন্দলের জেরে ছাত্রলীগ কর্মি হত্যাকাণ্ডে ফাসানো হচ্ছে নিরীহ পথচারীকে

আনোয়ারা প্রতিনিধি : : আনোয়ারায় দলীয় কোন্দলের জেরে ছাত্রলীগ কর্মি হত্যাকাণ্ডে ফাসানো হচ্ছে নিরীহ পথচারী মহিউদ্দিন ...বিস্তারিত



সর্বশেষ খবর