চট্টগ্রাম   রবিবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২১  

শিরোনাম

জুনায়েদ বাবুনগরীসহ ১৬ জনকে জিজ্ঞাসাবাদ

নিজস্ব প্রতিবেদক    |    ০৭:৫০ পিএম, ২০২১-০১-১২

জুনায়েদ বাবুনগরীসহ ১৬ জনকে জিজ্ঞাসাবাদ


আল্লামা আহমদ শফীকে হত্যার অভিযোগে দায়ের হওয়া মামলায় হেফাজতে আমির মাওলানা জুনাইদ বাবুনগরীসহ অন্তত ১৬ জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। এর মধ্যে বাবুনগরী ছাড়া বাকিদের জবানবন্দি নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংস্থাটির কর্মকর্তারা। পিবিআইয়ের চট্টগ্রামের বিশেষ পুলিশ সুপার ইকবাল হোসেনের নেতৃত্বে ১৫ সদস্যের একটি টিম হাটহাজারী ও বাবুনগর বড় মাদ্রাসায় গিয়ে তাদেও জিজ্ঞাসাবাদ করেন। 
জেলা পিবিআইয়ের পুলিশ সুপার নাজমুল হোসেন বলেন, আমরা এ হত্যা মামলায় ১৬ জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছি। ১৫ জনের জবানবন্দি নিয়েছি। শাহ আহমদ শফী সাহেবের যে কক্ষ সেটি পরিদর্শন করেছি এবং আলামত সংগ্রহ করেছি। 
সংশ্লিষ্টরা জানান, পিবিআই টিম দুঘণ্টা ধরে হাটহাজারী মাদরাসায় অবস্থান করে। এসময় মাদরাসার আশপাশ জুড়ে ছিল কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা। মাদরাসায় বাবুনগরী, আশরাফ আলী নিজামপুরী, মাদরাসার কর্মকর্তা মো. ইয়াহিয়াসহ অন্তত ১৬ জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এরপর বাবুনগর মাদরাসায়ও আরও সাত-আট জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে হেফাজতে ইসলামের আমীর জুনাইদ বাবুনগরী সাংবাদিকদের বলেন, ‘যা জিজ্ঞেস করেছে, জবাব দিয়েছি। এটা নিয়ে কোনো কথা বলব না। আমাদের বক্তব্য আমরা এর আগেই সংবাদ সম্মেলনে দিয়েছি। তদন্তের স্বার্থে আগামীতেও যদি তারা আসেন, আমরা মেহমানদারি করব।’
২০২০ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর হেফাজতে ইসলামের  প্রতিষ্ঠাতা আমীর শাহ আহমদ শফীর জীবনাবসান হয়। তিনি হাটহাজারীর দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম মাদরাসার মহাপরিচালক ছিলেন। মৃত্যুর আগে ওই মাদরাসায় তিনদিন ধরে তাকে অবরুদ্ধ করে ছাত্র বিক্ষোভ হয়। এর মধ্যে শফী গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন এবং একপর্যায়ে শারীরিক অবস্থার গুরুতর অবনতি হয়। হেলিকপ্টারে ঢাকায় হাসপাতালে নেওয়ার পর তার মৃত্যু হয়। মৃত্যুর পর শফীর পরিবার এবং হেফাজতে ইসলামের মধ্যে তার অনুসারীরা শফীকে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন। এজন্য তারা বাবুনগরী ও তার অনুসারীদের দায়ী করেন।
এরপর ১৭ ডিসেম্বর সকালে আহমদ শফীর শ্যালক মোহাম্মদ মঈন উদ্দিন বাদী হয়ে তৃতীয় জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শিপলু কুমার দে’র আদালতে একটি মামলা করেন। মামলায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য ভাঙার হুমকি দিয়ে আলোচনায় আসা মামুনুল হকসহ ৩৬ জনকে আসামি করা হয়। আদালত মামলা গ্রহণ করে পিবিআইকে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের আদেশ দিয়েছিলেন।
মামলায় অভিযুক্তরা হলেন- হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব নাছির উদ্দিন মুনির ও মামুনুল হক, সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল হক ইসলামাবাদী, সহকারী সাংগঠনিক সম্পাদক মীর ইদ্রিস এবং হাবিব উল্লাহ, আহসান উল্লাহ, জাকারিয়া নোমান ফয়েজী, নুরুজ্জামান নোমানী, আব্দুল মতিন, মো. শহীদুল্লাহ, মো. রিজওয়ান আরমান, মো. নজরুল ইসলাম, হাসানুজ্জামান, এনামুল হাসান ফারুকী, মীর সাজেদ, জাফর আহমদ, মীর জিয়াউদ্দিন, আহমদ, মাহমুদ, আসাদউল্লাহ, জোবায়ের মাহমুদ, এইচ এম জুনায়েদ, আনোয়ার শাহ, আহমদ কামাল, নাছির উদ্দিন, কামরুল ইসলাম কাসেমী, মোহাম্মদ হাসান, ওবায়দুল্লাহ ওবাইদ, জুবায়ের, মোহাম্মদ, আমিনুল হক, রফিক সোহেল, মোবিনুল হক, নাঈম, হাফেজ সায়েমউল্লাহ ও হাসান জামিল।
মামলায় অজ্ঞাতনামা আরও ৮০-৯০ জনকে আসামি করা হয়েছে। এছাড়া সাক্ষী করা হয়েছে ছয়জনকে।
মামলার আরজিতে অভিযোগ করা হয়েছে, আহমদ শফীর মৃত্যুর আগে ১১ সেপ্টেম্বর বাবুনগর মাদরাসায় মামুনুল হকসহ আসামিরা বৈঠক করেন। সেই বৈঠক থেকে শফীপুত্র আনাস মাদানীকে হাটহাজারী মাদরাসার শিক্ষা পরিচালক থেকে বহিষ্কারের দাবি জানানো হয়। তাকে বহিষ্কার করা না হলে আহমদ শফীকে চরম মূল্য দিতে হবে বলে হুমকি দেওয়া হয়।
এর ধারাবাহিকতায় ১৬ সেপ্টেম্বর দুপুরে একদল উচ্ছৃঙ্খল ছাত্রকে মাঠে নামানো হয়। তারা আনাস মাদানীর বিরুদ্ধে উগ্র ধর্মীয় ভাষা ব্যবহার করে স্লোগান ও গালিগালাজ করতে থাকে। আহমদ শফীর কার্যালয়ে অনধিকার  প্রবেশ করে আসামি নাছির উদ্দিন মুনির ধমকের সুরে বলেন, ‘তুই হচ্ছিস বুড়ো শয়তান, তুই মরবি না, তুই সরকারের দালাল।’ ৪০-৫০ জন শফীর কক্ষে গিয়ে আনাস মাদানীকে বহিষ্কার করে ওই পদে হেফাজতের বর্তমান আমীর জুনাইদ বাবুনগরীকে বসানোর দাবি করতে থাকেন। শফী রাজি না হওয়ায় মামুনুল হকের মোবাইলে নির্দেশমতে নাছির উদ্দিন মুনির তার দিতে তেড়ে যান, শফী বসা অবস্থায় চেয়ারে লাথি মারেন। নাকের অক্সিজেন টান দিয়ে খুলে ফেললে শফী অজ্ঞান হয়ে যান।
ওইদিন বিকেলে শফীকে জিম্মি করে আনাস মাদানীকে বহিষ্কার ও তার পদত্যাগের ঘোষণা মাইকে বলার জন্য চাপ দেন আসামিরা। তিনি অনীহা  প্রকাশ করলে তার কক্ষের বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ করে দেওয়া হয়। বিদ্যুতের অভাবে অক্সিজেন লাগাতে না পারায় শফী কোমায় চলে যান। তাকে হাসপাতালে নিতে বাধা দেওয়া হয়। শেষপর্যন্ত মাদরাসা থেকে বের করে হাসপাতালে নেওয়ার অনুমতি দেওয়া হলেও তাকে বহনকারী অ্যাম্বুলেন্স আটকে অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ করা হয়।
চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক জানান, শফী কোমায় চলে গেছেন। পরের দিন ১৮ সেপ্টেম্বর বিকেলে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে ঢাকার আজগর আলী হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে সন্ধ্যা ৬টা ২০ মিনিটে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
আরজিতে বলা হয়েছে, ‘আসামি নাছির উদ্দিন মুনির ও মামুনুল হকের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ  প্ররোচনায় মাদরাসায় ভাঙচুর করে শাহ আহমদ শফীকে উত্তেজিত করার মাধ্যমে এবং উনাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিতে না দেওয়ার মাধ্যমে প্রাণে হত্যা করা হয়েছে। মাদরাসা অবৈধভাবে গ্রাস করার জন্য পূর্বপরিকল্পিতভাবে বিশ্ববরেণ্য এই ইসলামী চিন্তাাবিদকে হত্যা করেছে।’
 

রিটেলেড নিউজ

অর্থ আত্মসাৎ ও প্রতারণা মামলাঃ ইমাম হোসেন দু’দিনের রিমান্ডে 

অর্থ আত্মসাৎ ও প্রতারণা মামলাঃ ইমাম হোসেন দু’দিনের রিমান্ডে 

নিজস্ব প্রতিবেদক :   অর্থ আত্মসাৎ ও প্রতারণা মামলায় গ্রেপ্তারকৃত ইমাম হোসেনের দু’দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদা...বিস্তারিত


চসিক নির্বাচন : ভোটকেন্দ্রে মোবাইল ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা

চসিক নির্বাচন : ভোটকেন্দ্রে মোবাইল ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা

নিজস্ব প্রতিবেদক : আসন্ন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) নির্বাচনে ভোটকেন্দ্রে প্রিসাইডিং কর্মকর্তা ও ভোটকেন্দ্রের ...বিস্তারিত


চাহিদা ৫০০০০ চালকের, মিলছে মাত্র ১৫০০০: শাজাহান খান

চাহিদা ৫০০০০ চালকের, মিলছে মাত্র ১৫০০০: শাজাহান খান

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশে প্রতিবছর ৫০ হাজার চালকের চাহিদা থাকলেও মাত্র ১০-১৫ হাজার চালক মিলছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ স...বিস্তারিত


ঘর ভাড়া নিয়ে জুয়ার আসর, গ্রেফতার ৯ 

ঘর ভাড়া নিয়ে জুয়ার আসর, গ্রেফতার ৯ 

নিজস্ব প্রতিবেদক : নগরের ডবলমুরিং থানাধীন আবিদারপাড়া এলাকার একটি জুয়ার আসর থেকে মূলহোতাসহ ৯ জনকে গ্রেফতার করেছে পুল...বিস্তারিত


নৌকার পক্ষে ভোট চাইছেন এক ঝাঁক তারকা 

নৌকার পক্ষে ভোট চাইছেন এক ঝাঁক তারকা 

নিজস্ব প্রতিবেদক : চট্টগ্রামে এসেছেন এক ঝাঁক তারকা। তারা আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী রেজাউল করিম চৌধুরীর জন্য নৌকা ম...বিস্তারিত


চট্টগ্রামে নয়, যেন ইউরোপ-আমেরিকার রাস্তায় এসেছি: রিয়াজ

চট্টগ্রামে নয়, যেন ইউরোপ-আমেরিকার রাস্তায় এসেছি: রিয়াজ

নিজস্ব প্রতিবেদক : সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী রেজাউল করিম চৌধুরীর পক্ষে প্রচারণায় এসে নায়ক রিয়াজ বলে...বিস্তারিত



সর্বপঠিত খবর

আসন্ন পটিয়া পৌর নির্বাচনে দল চাইলে মেয়র পদে প্রার্থী হবেন তৌহিদুল আলম

আসন্ন পটিয়া পৌর নির্বাচনে দল চাইলে মেয়র পদে প্রার্থী হবেন তৌহিদুল আলম

পটিয়া প্রতিনিধি : : বাংলাদেশ ফ্রেশ ফ্রুটস ইমপোর্টার্স এসোসিয়েশনের কেন্দ্রিয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক পটিয়া ...বিস্তারিত


আসন্ন পটিয়া পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে বড় দুই দল সহ অনেকই মনোনয়ন দৌড়ে

আসন্ন পটিয়া পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে বড় দুই দল সহ অনেকই মনোনয়ন দৌড়ে

মুহাম্মদ রুশনী মোবারক, পটিয়া : : আগামী নভেম্বর ২০২০ ইং মাস থেকে ধারাবাহিকভাবে নির্বাচনী কার্যক্রম শুরু হবে, চলবে জানুয়ারি-ফেব্রুয়...বিস্তারিত



সর্বশেষ খবর