ই-পেপার | মঙ্গলবার , ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩
×

বর্বর কমান্ডার সুরোভিকিনকে দায়িত্ব পাওয়ার পরই বেড়েছে রাশিয়ার হামলা

ইউক্রেনে ‘বিশেষ সামরিক অভিযান’ পরিচালনায় জেনারেল সের্গেই সুরোভিকিনকে শনিবার নিয়োগ দেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

তিনি দায়িত্ব নেওয়ার পর দিনই ইউক্রেনজুড়ে চালানো হয় ভয়াবহ মিসাইল হামলা। মঙ্গলবারও এটি অব্যাহত ছিল।

সের্গেই সুরোভিকিন ২০১৭ সালে সিরিয়ায় মোতায়েনকৃত রুশ বিমান সেনাদের কমান্ডার ছিলেন। সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাসার আল আসাদ বিরোধী গোষ্ঠীর ওপর বর্বর হামলা চালানোর জন্য কুখ্যাত তিনি।

সিরিয়ায় চালানো সেই বর্বর হামলার বিষয়টি তিনি মনে করিয়ে দিয়েছেন ইউক্রনেও।সের্গেই সুরোভিকিনের নির্দেশে সিরিয়ার আলেপ্পোর বেশিরভাগ অংশ ধসিয়ে দেওয়া হয়।

২০২০ সালে প্রকাশিত একটি রিপোর্টে হিউম্যান রাইটস ওয়াচ সের্গেই সুরোভিকিনকে ইদলিবে আন্তর্জাতিক আইন ভঙ্গ করার অভিযোগে তালিকাবদ্ধ করে। তারা জানায় সুরোভিকিনের নির্দেশে সিরিয়ায় স্কুল, দোকান, বাসা বাড়ি যেখানে সাধারণ মানুষ বসবাস করে সেসব জায়গায় হামলা চালিয়েছে রুশ সেনারা।

‘মায়াদয়াহীন’ হিসেবে পরিচিত সের্গেই সুরোভিকিন সিরিয়ার পাশাপাশি তাজিকিস্তান এবং চেচনিয়াতেও দায়িত্ব পালন করেছেন।
সোমবার ইউক্রেনজুড়ে হামলা চালানোর পর রুশ কমান্ডার সুরোভিকিনকে নিয়ে কথা বলেন তারই এক সাবেক সহকর্মী।

ব্রিটিশ গণমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ানকে তিনি বলেন, কিয়েভে আজ সকালে কি হয়েছে তা দেখে আমি অবাক হইনি। সুরোভিকিনি হলো দয়ামায়াবিহীন, মানুষের জীবনের মূল্য তার কাছে কম। আমার ভয় তার হাত ইউক্রেনের রক্তে রঞ্জিত হবে।

সুরোভিকিন প্রথম আলোচনায় আসেন ১৯৯১ সালে। সে সময় অভ্যুত্থান চেষ্টাকারী আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা চালায় তার নেতৃত্বাধীন ইউনিট।

সুরোভিকিনকে ইউক্রেনে অভিযান পরিচালনার দায়িত্ব দেওয়ার পর চেচনিয়ার নেতা রমজান কাদিরভও আনন্দ প্রকাশ করেন। সোমবার ইউক্রেনে হামলার পর তিনি বলেন, আমি এখন শতভাগ সন্তুষ্ট।

সূত্র: বিবিসি, আল জাজিরা, সিএনএন