ই-পেপার | রবিবার , ১৪ এপ্রিল, ২০২৪
×

নারী সাংবাদিক হেনস্তার বিচার চেয়েছে চবির সাবেক সাংবাদিক নেতারা

বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে দৈনিক সমকালের চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি মারজান আক্তারকে ছাত্রলীগ নামধারী দুর্বৃত্তদের হেনস্তার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির সাবেক নেতারা। সেইসঙ্গে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয়। গতকাল সোমবার সাবেক নেতাদের স্বাক্ষরিত একটি বিবৃতি গণমাধ্যমে পাঠানো হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, গত ৯ ফেব্রুয়ারি পেশাগত দায়িত্বপালন করতে গিয়ে একজন নারী সাংবাদিককে ছাত্রলীগ নামধারী কিছু দুর্বৃত্ত ঘিরে ধরে হেনস্তা করেছে। ব্যাগ নিয়ে টানা-হেঁচড়া করেছে। কটূক্তি ও হুমকি দিয়েছে। যা নজিরবিহীন। এ ঘটনা চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতার ইতিহাসে কালো অধ্যায় হয়ে থাকবে। এই ধরণের ন্যাক্কারজনক ঘটনা গণমাধ্যমের স্বাধীনতা খর্বের চেষ্টার পাশাপাশি আগামী দিনের স্বাধীন সাংবাদিকতা ও মত প্রকাশের জন্য হুমকি।

মারজান শুধু একজন সংবাদ কর্মীই নন, একইসঙ্গে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষার্থী। বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরে একজন নারী শিক্ষার্থীকে নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। ঘটনার পাঁচদিন পার হলেও এ ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে এখনো কোন ব্যবস্থায় নেয়নি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। যা দুর্বৃত্তদের প্রতি প্রশাসনের নীরব প্রশ্রয়ের ইঙ্গিত দেয়। যেটি শুধু স্বাধীন সাংবাদিকতায় নয়, বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০ হাজার শিক্ষার্থীর নিরাপত্তাহীনতাকে তুলে ধরে।

সংবাদকর্মী মারজান আক্তারকে হেনস্তার ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে অবিলম্বে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির সাবেক নেতারা ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানাচ্ছে।

বিবৃতিদাতারা হলেন-চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক সভাপতি হামিদ উল্লাহ, মিয়া মোহাম্মদ আরিফ, খলিলুর রহমান, রুবেল খান, মোহাম্মদ জাফর ইকবাল, এহসান জুয়েল, আল-আমীন দেওয়ান, ইলিয়াছ সরকার, ওমর ফারুক, সুজন ঘোষ, হেদায়েত উল্লাহ খন্দকার পলাশ, হুমায়ুন মাসুদ, ফারুক আবদুল্লাহ, আবু বকর ছিদ্দিক রাহাত, আশহাবুর রহমান শোয়েব, সৈয়দ বাইজিদ ইমন, আব্দুল্লাহ আল ফয়সাল, ইমরান হোসাইন ও সাইফুল ইসলাম।

সাবেক সাধারণ সম্পাদকরা হলেন-মজুমদার নাজিম উদ্দিন, আবদুস সবুর, রিয়াজ রায়হান, মো. এমদাদুল হক, মাহবুব মিলন, আব্দুল্লাহ আল মামুন, আশরাফ রেজা, তাসনীম হাসান, মন্ডল মোহাম্মদ আরিফ, মো. মাহমুদুর হাসান, জোবায়ের চৌধুরী, মনোয়ার রিয়াজ মুন্না ও রায়হান উদ্দিন।