শিরোনাম :


বিষয় :

বাসায় ডেকে ছাত্রীকে ধর্ষণ, প্রধান শিক্ষক শ্রীঘরে


১০ জুন, ২০২৪ ৩:৩৪ : অপরাহ্ণ

স্টাফ রিপোর্টার : মা গার্মেন্টসকর্মী। রোজকার মতোই সকালবেলা চলে যান অফিসে। ঘরে ছিলো তার পঞ্চম শ্রেণি পড়ুয়া মেয়ে। পাশাপাশি ঘরেই থাকতো তার শিক্ষক ফয়েজুল ইসলাম (৪৬)। সুযোগে ছাত্রীকে পড়ার নাম করে ডেকে নেন তিনি। করেন জোরপূর্বক ধর্ষণ। পরে ছাত্রীর মায়ের করা মামলায় পুলিশ গ্রেপ্তার করে তাকে। রবিবার (৯ জুন) চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালত গ্রেপ্তার ওই শিক্ষককে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। গ্রেপ্তার ফয়েজুল ইসলাম চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার বাসিন্দা। তিনি চট্টগ্রাম নগরের শেরশাহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হিসেবে কর্মরত। মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, ওই শিক্ষার্থীর মা গার্মেন্টসকর্মী। প্রতিদিনের মতো শনিবার সকালেও তিনি তার মেয়েকে বাসায় রেখে কারখানায় চলে যান। তাদের বাসার পাশেই বাসা শিক্ষক ফয়েজুল ইসলামের। সে তার কাছে প্রাইভেট পড়তো। শনিবার প্রাইভেট বন্ধ থাকা সত্ত্বেও ওই ছাত্রীকে বাসায় ডেকে নেন শিক্ষক ফয়েজুল। এরপর তাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেন। পরবর্তীতে কর্মস্থল থেকে আসলে ওই শিক্ষার্থী তার মাকে পুরো বিষয় খুলে বললে তার মা বাদী হয়ে ওই শিক্ষককে অভিযুক্ত করে বায়েজিদ বোস্তামি থানায় একটি ধর্ষণের মামলা করেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বায়েজিদ বোস্তামি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সঞ্জয় কুমার সিনহা। তিনি বলেন, ‘ওই শিক্ষার্থীর মায়ের করা ধর্ষণের মামলায় শিক্ষক ফয়েজুল ইসলামকে শনিবার গ্রেপ্তার করা হয়৷ রবিবার আদালতে পাঠানো হলে আদালত তাকে কারাগারে প্রেরণের আদেশ দেন।’ ভুক্তভোগী ছাত্রী বর্তমানে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের ওয়ান-স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) ভর্তি রয়েছে বলেও জানিয়েছেন ওসি।

আরো সংবাদ